প্রবাস টাইম
ঢাকারবিবার , ৬ জুন ২০২১
  1. অন্যান্য
  2. অপরাধ
  3. আন্তর্জাতিক
  4. ওমান
  5. করোনা আপডেট
  6. কৃষি
  7. খেলাধুলা
  8. খোলা কলম
  9. চাকরি
  10. জাতীয়
  11. জানা অজানা
  12. জীবনের গল্প
  13. ধর্ম
  14. প্রতিনিধি
  15. প্রবাস
আজকের সর্বশেষ সবখবর

প্রবাসীদের উদ্দেশ্যে সতর্কবার্তা

প্রতিবেদক
Desc
জুন ৬, ২০২১ ১:১৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

করোনাকালিন সময়ে বিদেশগামী অনেক প্রবাসী প্রতারণার শিকার হচ্ছেন নানাভাবে। এমতাবস্থায় প্রবাসীদের উদ্দেশ্যে সতর্ক বার্তা দিয়েছেন শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এতে বলা হয়েছে, সরকারি নির্দেশ ও বিভিন্ন দেশের নির্দেশনা অনুসারে বাংলাদেশ থেকে বিদেশগামী যাত্রীদের জন্য পিসিআর পদ্ধতিতে করোনা পরীক্ষা বাধ্যতামূলক। শুধু মাত্র নেগেটিভ রিপোর্টধারীরা বিদেশ যেতে পারবেন।

 

করোনার পরীক্ষা সরকার নির্ধারিত ক্লিনিক/হাসপাতাল থেকে করতে হবে। করোনা টেস্ট সংক্রান্ত তথ্য https://corona.gov.bd/corona-hospital এই লিংকে যেয়ে অনলাইনের মাধ্যমে পাওয়া পাওয়া যাবে। বিদেশগামীদের করোনা রিপোর্টে অবশ্যই কিউআর কোড ( QR CODE) থাকতে হবে। এই কোড না থাকলে রিপোর্ট গ্রহণযোগ্য নয়। একই সঙ্গে কিউআর কোড মোবাইলে স্ক্যান করলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের ওয়েব সাইটে রিপোর্ট শো করতে হবে। যদি রিপোর্ট অনলাইনে দেখা না যায়, তাহলে এ রিপোর্ট কোনোকাজে আসবে না।

ফ্রেন্ডি সিমের ৪ জিবি ডাটা অফার পেতে ছবির উপর ক্লিক করুনঃ

 

কেউ যদি করোনায় আক্রান্ত হয়েও ভুয়া করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট নিয়ে বিদেশ যাওয়ার চেষ্টা করে, তাহলে তাকে অবশ্যই হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ধরা পড়তে হবে। এই ধরনের অন্যায় কাজ করলে বিদেশ যাওয়া তো হবেই না, বরং উক্ত ব্যক্তিকে জেল/জরিমানার মুখোমুখি হতে হবে। এমতাবস্থায় সবাইকে সঠিক ভাবে করোনা পরীক্ষা করে বিদেশ গমন করতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। 

 

এদিকে, ঢাকা বিভাগের বিভিন্ন জেলার রেন্ট-এ-কার ব্যবসায়ীদের কাছে বিদেশফেরত আত্মীয়কে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে রিসিভ করার কথা বলে প্রতারক চক্রের সদস্যরা প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাস ভাড়া করত। পরে নির্দিষ্ট স্থান থেকে চক্রটির একজন সদস্য ভাড়া করা গাড়ি নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হয়। পথে চক্রটির আরও কয়েকজন সদস্য গাড়িতে উঠে। ঢাকা আসার রাস্তায় সুবিধানজক স্থানে গাড়িটি থামিয়ে চালকের হাত-পা বেঁধে তাকে ফেলে দিয়ে গাড়ি নিয়ে উধাও হয়ে যেত চক্রটি।

 

সম্প্রতি অন্য একটি মামলার তদন্ত করতে গিয়ে এই চক্রের হাবীব মিয়া নামে এক সদস্যকে গ্রেফতার করে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদে এই গাড়ি ছিনতাই চক্রের সন্ধান পায় ডিবি। তার দেওয়া তথ্য মতে চক্রের আরও সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ডিবি।

 

চক্রের গ্রেফতার বাকি পাঁচ সদস্য হলেন- মীর মিজান মিয়া, মো. ফারুক, কামাল মিয়া, মো. আল আমিন ও মোবারক। গ্রেফতারের সময় তাদের কাছ থেকে ছিনতাই করা একটি মাইক্রোবাস জব্দ করা হয়। শনিবার (০৫ জুন) দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ডিবির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার।

 

হাফিজ আক্তার বলেন, আমরা অন্য একটি মামলার তদন্ত করতে গিয়ে গাড়ি ছিনতাই চক্রের হাবীব মিয়াকে গ্রেফতার করি। পরে তাকে বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদ করতে গিয়ে গাড়ি ছিনতাই এই চক্রের সন্ধান পাই আমরা। আমাদের জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায়, চক্রটি বিদেশ থেকে আসা আত্মীয়কে বিমানবন্দর থেকে রিসিভ করার কথা বলে প্রাইভেটকার বা মাইক্রোবাস ভাড়া করে তা বিভিন্ন কৌশলে চালকের হাত-পা বেঁধে ছিনতাই করে উদাও হয়ে যেত। 

 

পরে বিদেশ থেকে দেশে অল্প কয়েক দিনের জন্য ঘুরতে আসা প্রবাসীদের কাছে এসব গাড়ি বিক্রি করত চক্রটি। এসব গাড়ি ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা থেকে ২ লাখ টাকায় বিক্রি করত চক্রটি। এসব তথ্য যাচাই করে আমরা শুক্রবার (৪ জুন) নরসিংদী ও কুমিল্লা জেলার একাধিক স্থানে অভিযান চালিয়ে চক্রের আরও পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়।

 

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই চক্রটি এখন পর্যন্ত কী পরিমাণ গাড়ি ছিনতাই করেছে তা আমরা খতিয়ে দেখছি। তবে আমরা এখন পর্যন্ত তদন্তে জেনেছি, চক্রটি সব থেকে বেশি গাড়ি বিক্রি করত সিলেটে। সিলেটে ইউরোপ থেকে বিভিন্ন প্রবাসীরা দেশে বেড়াতে আসতেন নিজ বাড়িতে। তখন তারা অল্প দামে গাড়ি খুঁজতেন কয়েক মাসের জন্য। 

 

আর চক্রটির সদস্যরা এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে তাদের কাছে এসব গাড়ি বিক্রি করত। তাই গাড়ির কেনার আগে সব তথ্য ক্রেতাদের যাচাই করে নিতে হবে। না হলে এসব গাড়ি কিনে তারা নিজেরাও বিপদে পড়ে যাবেন। চক্রের সদস্যরা গ্রামের বিভিন্ন সহজ-সরল মানুষের কাছ থেকে অব্যবহৃত সিম কিনে ব্যবহার করত বলে তাদের এতদিন শনাক্ত করা যায়নি বলেও তিনি জানান। এমতাবস্থায় বিদেশ ফেরত প্রবাসীদের সতর্কতার সাথে গাড়ি ভাড়া করতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। 

 

 

আরো দেখুনঃ

প্রবাস টাইম সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।