Probash Time
বাংলাদেশরবিবার , ৩ জুলাই ২০২২
  1. অন্যান্য
  2. অপরাধ
  3. আন্তর্জাতিক
  4. আমেরিকা
  5. ইউরোপ
  6. এশিয়া
  7. ওমান
  8. করোনা আপডেট
  9. কৃষি
  10. খেলাধুলা
  11. খোলা কলম
  12. চাকরি
  13. জাতীয়
  14. জানা অজানা
  15. জীবনের গল্প
 
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কিশোরগঞ্জে সিনেমা হল থেকে মাদরাসা

শহিদুল ইসলাম
জুলাই ৩, ২০২২ ১১:৫৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

যেখান থেকে এখন শুনা যাচ্ছেন পবিত্র কুরআনের সুমধুর তেলাওয়াত। একটা সময় এখানেই চলতো অশ্লীল সিনেমা। কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার ট্রলার ঘাট এলাকার সেই ‘সৈকত’ সিনেমা হলই এখন সওতুল হেরা হাফেজিয়া মাদরাসা। তবে এই সিনেমা হল থেকে মাদরাসা হওয়ার গল্প কিন্তু এতটা সহজ নয়। 

জানাগেছে,  এক সময় কিশোরগঞ্জ জেলায় প্রায় ২৫টি সিনেমা হল ছিল। মালিক পক্ষ এ হলগুলো চালাতো প্রতিযোগিতা করে। সময়ের ব্যবধানে ১৭ স্থান নিয়েছে কফিনে। বাকিগুলোও মৃতপ্রায়। অনেক হল রূপ নিয়েছে অনেক রকমের। কোনোটি হয়েছে গুদাম, কোনোটি মার্কেট, কোনটি শপিংমল, কোনোটি ভেঙ্গে হয়েছে রাস্তা। কিন্তু ‘সৈকত’ রূপ নিয়েছে হিফজুল কোরআন মাদরাসায়। ট্রলারঘাট বাজারের আলেম ব্যবসায়ী হাফেজ মাওলানা আবদুর রউফের প্রচেষ্টায় এটি এখন ‘সওতুল হেরা হাফিজিয়া মাদরাসা’।

কীভাবে এ কাজটি সম্ভব হলো জানতে চাইলে সওতুল হেরা হাফিজিয়া মাদরাসা’র পরিচালক হাফেজ মাওলানা আবদুর রউফ জানান, দীর্ঘদিন মাদ্রাসায় পড়ানোর পর প্রিয় নবীর সুন্নাত হিসেবে কাপড়ের ব্যবসার সঙ্গে তিনি যুক্ত হন। তার দোকান ছিল এই ট্রলারঘাট বাজারেই। তিনি দেখেছি, আশির দশকে প্রতিষ্ঠিত এই ‘সৈকত’ সিনেমা হলটি যখন ব্যবসায় মন্দা সময় কাটাচ্ছিল, তখন এতে ছবি প্রদর্শিত না হয়ে ভেতরে বিভিন্ন ধরনের অপকর্ম চলত। এ বিষয়টি তাকে খুবই ব্যথিত করত।

তিনি তখনই নিয়ত করেন এখানে এমন এমন একটি মাদ্রাসা করবেন যে মাদ্রাসার মধ্যে কোন ধরনের কালেকশন হবে না। ছাত্ররা একমনে শুধু লেখাপড়া করবে। তার এই ইচ্ছে তিনি দূর সম্পর্কের এক ভাগিনাকে বললে, সে তাকে এই সিনেমা হলটিকে ভাড়া নিয়ে মাদ্রাসা বানিয়ে ফেলার পরামর্শ দেন। তিনি তার ভাগ্নের কথায় খুব অবাক হন। তিনি কখনো ভাবেননি যে তার এই কথা বাস্তবে রূপ নিবে।   

আব্দুর রউফ সিনেমা হলের জায়গার মালিক গিয়াস উদ্দিন লাকি মহাজনের সঙ্গে কথা বলে দেখা করতে যান। তিনি মালিককে সব কথা খুলে বলেন। কিন্তু ভাড়া আর অ্যাডভান্স নিয়ে তাদের মধ্যে একটু মতানৈক্য হয়। পরে জানাবেন বললে আব্দুর রউফ ফিরে যান।

কিন্তু মালিকের স্ত্রী যখন বিষয়টি জানতে পারেন তখন বারবার তাকে তাগাদা দিতে লাগলেন এই বলে যে,  কেন টাকার জন্য একটি মাদরাসা হবে না! এসব কথা শুনে তিনি আব্দুর রউফকে ডেকে স্থাপনাটি ভাড়া দিতে রাজি হন। এরপর আল্লাহর অশেষ রহমতে ২০১৬ সালের রমজানে তিনি সিনেমাটি ভাড়া হিসেবে পান এবং কয়েক লক্ষ টাকা খরচ করে এটিকে মাদরাসার উপযোগী করে তুলেন। বর্তমানে এই মাদরাসা থেকে ছাত্ররা কুরআন শরীফ পড়ছে, হাদিস পড়ছে, ইসলামের প্রাথমিক জ্ঞানগুলো এখান থেকে শিক্ষা অর্জনের চেষ্টা করছে।

আরো পড়ুন:

মালয়েশিয়ায় চিরুনি অভিযান, চরম আতঙ্কে প্রবাসীরা

বিশ্বে ফের ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে করোনা, একদিনে সংক্রমণ ছাড়ালো ৭ লাখ 

প্রবাসী স্বামীর মরদেহ দেখে স্ট্রোক করে মারা গেলেন স্ত্রী

মালয়েশিয়ায় হুন্ডির দাপট, প্রণোদনা বাড়ানোর পরও রেমিট্যান্সে ভাটা

ওমানের ব্যাংক মাস্কাট থেকে ঋণ নিল বাংলাদেশের সিটি ব্যাংক

আরো দেখুনঃ

এই সম্পর্কিত আরো সংবাদ: