ওমান প্রবাসীকে নিয়ে বাংলাদেশ পুলিশের বিবৃতি জারি

মে ১৭, ২০২১ | ৩:০৯ অপরাহ্ণ
ডেস্ক রিপোর্টঃ , প্রবাস টাইম

বিদেশ থেকে অনেক সময়ই প্রবাসীরা দেশের প্রিয়জনের জন্য উপহার সামগ্রী পাঠান, তবে প্রায়ই শুনা যায় প্রবাসীর পাঠানো সেই উপহার প্রিয়জনের হাতে না দিয়ে নিজেই আত্মসাৎ করেন! সম্প্রতি এমন এক ঘটনা নিয়ে বিবৃতি জারি করেছে বাংলাদেশ পুলিশ।   সোমবার (১৭-মে) এক বিবৃতিতে পুলিশ জানিয়েছে, ওমান থেকে এক প্রবাসী তার আত্মীয়ের জন্য মাসুদ পারভেজ রাজা নামে আরেক প্রবাসীর কাছে একটি ল্যাপটপ পাঠান। তবে রাজা দেশে ফিরে সেই ল্যাপটপ না দিয়ে যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। পরে ওই ওমান প্রবাসীর আত্মীয় এ বিষয়ে বাংলাদেশ পুলিশের অফিশিয়াল ফেসবুক পেইজের ইনবক্সে অভিযোগ করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত করে পুলিশ কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা থেকে ল্যাপটপটি উদ্ধার করে।  

বঙ্গবন্ধু কুইজ প্রতিযোগিতায় সর্বোচ্চ সঠিক উত্তরদাতা একশত জনের তালিকা দেখুন এই লিংকে http://www.probashtime.net/quiz/
  সোমবার (১৭ মে) পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রি‌লেশন্স) মো. সো‌হেল রানা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। সো‌হেল রানা বলেন, রাজধানীর খিলগাঁও থেকে আলাউদ্দিন মাহি নামে এক ব্যক্তি বাংলাদেশ পুলিশ অফিশিয়াল ফেসবুক পেইজে মেসেজ করে জানান, ওমান থেকে তার ভাগ্নি জামাই ওমান ফেরত অপর এক বাংলাদেশি মাসুদ পারভেজ রাজার মাধ্যমে একটি ল্যাপটপ পাঠান। কথা ছিল দেশে ফেরার দিন এয়ারপোর্ট থেকে ল্যাপটপটি আলাউদ্দিন মাহি নিজেই সংগ্রহ করবেন। কিন্তু মাসুদ পারভেজ রাজা এয়ারপোর্টে নেমে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। রাজা ও তার ভাইয়ের মোবাইলে বার বার ফোন দিলেও তারা ল্যাপটপের কথা অস্বীকার করেন। পরে আলাউদ্দিন বিষয়টি পুলিশকে জানায়।   বিষয়টি মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স উইংয়ের দৃষ্টিতে আনেন আলাউদ্দিন। তার মেসেজ পেয়ে প্রাথমিক কিছু তথ্য সংগ্রহ করে মিডিয়া উইং। জানতে পারে মাসুদ পারভেজ রাজার গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়া জেলার ভেড়ামারা থানায়। পরে অভিযুক্তের নাম ঠিকানাসহ মেসেজটি সংশ্লিষ্ট থানার ওসি মো. শাহজালালকে পাঠানো হয়। পাশাপাশি বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। এই পরিপ্রেক্ষিতে ওসি ভেড়ামারা তাৎক্ষনিকভাবে এসআই দীপন কুমার ঘোষের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল অভিযুক্তের বাড়িতে পাঠান। পুলিশ দেখে প্রথমে তার পরিবারের সদস্যরা মাসুদ পারভেজ রাজার দেশে ফেরার কথা অস্বীকার করেন। পরে আলাউদ্দিনের করা অভিযোগের ভিত্তিতে রাজাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয় এবং অভিযান চালিয়ে ল্যাপটপটি উদ্ধার করা হয়। ল্যাপটপটি আলাউদ্দিন মাহিকে বুঝিয়ে দিয়েছে পুলিশ। এছাড়াও অভিযুক্ত মাসুদ পারভেজ রাজার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। পুলিশের এমন কাজের ভুয়ুসি প্রশংসা করেছেন অসংখ্য প্রবাসী।   আরো দেখুনঃ https://www.youtube.com/watch?v=CuTZk3eja44&t=6s